করোনা সচেতনায় ''তারুণ্যের আলো''

করোনা সচেতনায় ''তারুণ্যের আলো''

করোনা সচেতনায় ''তারুণ্যের আলো''

প্রকৃতির প্রাচুর্যে ভরপুর সুন্দরবন সংলগ্ন প্রত্যন্ত জনপদে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা নৈসর্গিক সৌন্দর্যে অভ্যস্থ বরগুনাবাসীর জীবনযাত্রায় হঠাৎ করেই নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়ে। উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় ও মৃত্যুভয়ে আতঙ্কিত হয়ে জীবনযাপন করছে। সরকারি বিধি লকডাউনে শহরে কর্মে নিয়োজিত চাকুরীজীবি,শ্রমিক,ছাত্র-শিক্ষকসহ এককালীন সাধারণ ছুটিতে গ্রামে ফিরে আসা ১নং বদরখালী ইউনিয়নের ডেমা-গুলিশাখালী-ও পাতাকাটার তরুণদের সমন্বয়ে প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে কাজ করতে গঠন করা হয় "তারুণ্যের আলো" নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। শুরু থেকে কাজ করছেন তরুণ এ দলটি প্রথম ধাপে সবাই নীজ পরিবারকে সচেতন করার দায়িত্ব নিলেন। হাতে হ্যান্ড গ্লাভস, মুখে মাস্ক, গায়ে এ্যাপ্রোন পড়ে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সদস্যদের নিয়ে প্রতিদিন নিয়ম করে গ্রামের দোকানপাট,রাস্তাঘাট ও বাড়িতে গিয়ে ভাইরাসের লক্ষণ, সংক্রমণ ও প্রতিকার নিয়ে গ্রামের প্রতিটি ঘরে ঘরে সচেতন করা সহ মাইকিং করে যাচ্ছেন এই সাহসী তরুন দল তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য (রিয়াজ হাওলাদার, শামীম, সজীব,খাইরুল,জসীম, নাঈম,শিমুল, রাকিব,শিহাব,দিপু) সহ আরো অনেকে।
করোনা সচেতনায় ''তারুণ্যের আলো''
গ্রামের লোকসমাগম বেশি হয় এমন জায়গায় হাত ধোয়ার জন্য নিজ উদ্যোগে সংগঠনের সদস্যরা জরুরীভাবে পানির ড্রাম, সাবান ও দেখবালের ব্যবস্থা করেন। লকডাউনে কর্মহীন হয়েপড়া অভাবি মানুষদের ঘরে ঘরে রাতের অন্ধকারে খাদ্যদ্রব্য পৌঁছে দেয়া হচ্ছে যাতে সাহায্যপ্রাপ্তরা কোনো ধরনের হীনমন্যতায় না ভোগেন। সংক্রমণ ঠেকাতে শহর ও বিদেশ ফেরতদের বাড়ি লকডাউন নিশ্চিত করা, বাড়ি-ঘরে জীবাণু নাশক স্প্রে ছিটানোর কাজ এবং সার্বিকভাবে সহযোগিতা করে আসছে এ সংগঠনটি।

করোনা সচেতনায় ''তারুণ্যের আলো''


ইতোমধ্যে সংঘঠনটি এলাকায় ভাইরাস সংক্রমণ রোধে জনসাধারণের মাঝে ফ্রী মাস্ক বিতরন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন সদস্য সচিব আবু সালেহ এবং সংঘঠন এর অন্যতম সদস্য মাসুম বিল্লাহ সহ অন্যান্য সদস্য রা তারা বলেন এখন পর্যন্ত নিজেদের টাকায় চলছে তাদের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কার্যক্রম। ১নং বদরখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব শরীফ ইলিয়াস আহমেদ স্বপন উক্ত সংগঠনের সদস্যদের সাধুবাদ জানিয়ে বিভিন্নভাবে সাহায্য করে যুক্ত রয়েছেন তরুণদের এ সংগঠনের সাথে। তারুণ্যের ইতিবাচক সেবায় ইতিমধ্যে জনপ্রিয়তার প্রশংসায় ভাসছে তরুণ স্বেচ্ছাসেবীরা। পরিবর্তন এসেছে গ্রামবাসীর মধ্যে। কিশোররা ও আড্ডাবাজি ছেড়ে আনন্দের সাথে কাজ করছে। বয়স্করা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাফেরা করছেন। কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে স্বেচ্ছাসেবীদের মাঝেও। মানব সেবার অনুভূতি জানতে চাইলে দলের সদস্য সচিব আবু সালেহ ক্যানভাস নিউজ২৪ কে বলেন, মাঝে মাঝেই এখন বিভিন্ন জায়গা থেকে আমরা ফোন পাচ্ছি। আশেপাশের এলাকা থেকে মানুষ আমাদের অনুরোধ করছেন তাদের এলাকায় স্বেচ্ছাসেবী পাঠিয়ে মাইকিং করাসহ নানাভাবে সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরির জন্য।আমরাও চেষ্টা করছি আমাদের সাধ্যমতো তাদের ডাকে সাড়া দিতে। সংগঠনের আহবায়ক রাশেদুল ইসলাম (রাসেল) ক্যানভাস নিউজ২৪ কে জানান, যেহেতু আমাদের পরিকল্পনা সফলভাবে বাস্তবায়ন করে চলছি। তাই এ সংঘঠনের মাধ্যমে আমাদের এলাকার সার্বিক উন্নয়ন সহ ভবিষ্যতে যে কোন দূর্যোগ এ আমরা এলাকার মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে চাই। তিনি আরও বলেন, আমরা আমাদের কার্যক্রম কোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করিনা। রিপোর্টারঃ মাইনুল হাসান লিটন।

0/Post a Comment/Comments

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো