তারাও ভীষণ সুন্দরী!

তারাও ভীষণ সুন্দরী!

তারাও ভীষণ সুন্দরী!

সুন্দরের সংজ্ঞা নিয়ে যদি আপনি ‘চরমপন্থি’ গোছেন হন, তাহলে দেখতে পারেন এসব ছবি। ছবির মেয়েরা কুমারী। ইথিওপিয়ার সুরী উপজাতির। ভীষণ সুন্দর তারা। তারপরেও সেই সৌন্দর্য আরো বাড়ানোর চেষ্টার কমতি নেই।
সামনের পাটির দুটো দাঁত ভেঙে ফেলা হয়েছে। এরপর ঠোঁটের নিচের অংশে দুটি ফুটো করে মাটির তৈরি বিশেষ পাত্র বসানো হয়েছে। তরুণীর বয়স যত বাড়তে থাকবে পাত্রটিও ধীরে ধীরে বড় করা হবে। যেন দেখতে আরো সুন্দর মনে হয়।
এর পেছনে কিন্তু রহস্যময় কারণও আছে। ঠোঁটের পাত্রের আকার যত বড় হবে তত বেশি সুন্দরী হিসেবে গণ্য হবেন। শুধু কি তাই? পাত্রের আকর-আয়তন বিবেচনায় মেয়ের বাবা যৌতুক হিসেবে ছেলে পক্ষ থেকে ৪০ থেকে ৬০টি গরু পেয়ে যাবেন।
তা-ই যদি হয়, তাহলে মেয়ের ঠোঁটের পাত্র বড় করে সৌন্দর্য বাড়ানোয় দোষ কোথায়? এখানে সুন্দরের সংজ্ঞা কে নির্ধারণ করবেন? আপনি না আমি? নিশ্চয়ই নয়। এটা তাদের গোত্রের বা সামাজিক মূল্যবোধের বিষয়।
তবে ইথিওপিয়ার সুরী উপজাতিদের প্রথা অনুযায়ী কিশোরীদের বয়ঃসন্ধি কালে তাদের সামনের পাটির দাঁত ভেঙে সৌন্দর্য বাড়ানোতে কিন্তু বিপদও দেখা দিচ্ছে। এই প্রথা তরুণীদের জন্য মানসিক ও শারীরিক ক্ষতির কারণ হয়ে দেখা দিচ্ছে। 
সূত্রঃ ভোরের কাগজ 

0/Post a Comment/Comments

নবীনতর পূর্বতন